শিক্ষা জাতির মেরুদন্ড। শিক্ষার জন্য মানুষ দেশ থেকে বিদেশেও পাড়ি জমায়। বর্তমান বিশ্বের অনেক ছাত্র-ছাত্রী শিক্ষার জন্য বিভিন্ন দেশে পাড়ি জমাচ্ছে। বাংলাদেশের অনেকেও বিশ্বের অনেক দেশে উচ্চ শিক্ষার জন্যই যাচ্ছে। প্রতি বছরই এই ছাত্র-ছাত্রীর সংখ্যা বাড়চ্ছে। বাংলাদেশেও অনেক বিদেশী ছাত্র-ছাত্রী পড়াশুনার জন্য আসছে। বর্তমান সময়ে বাংলসাদেশের শিক্সার মান বৃদ্ধি পেয়েছে। এবং বিশ্বের সাথে তাল মিলিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ।
রেবিকা প্রধানের সঙ্গে আলাপ জমাতে আমরা গিয়েছিলাম তাঁর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, ঢাকা মেডিকেল কলেজে। তখন কলেজ ভবনের সামনে দাঁড়িয়ে আছি। মুঠোফোনে কথা হচ্ছে। ফোনের ও–প্রান্ত থেকে রেবিকা জানালেন, আমাদের সামনেই তিনি আছেন। কিন্তু আমাদের চোখ তখনো ’ভিনদেশি’ চেহারার কোনো মেয়েকে খুঁজছে। রেবিকাকে দেখে তো বোঝার উপায় নেই, তিনি নেপালের মেয়ে!

শুধু আমরা কেন, তাঁর শিক্ষকও প্রথমে বিশ্বাস করেননি। পরিচিতির জন্য ক্লাসে দাঁড় করানো হয়েছে। শিক্ষকের প্রশ্ন, ’তুমি সত্যিই নেপালি তো?!’ ভিনদেশি তরুণীর সঙ্গে আড্ডা জমে উঠলে বোঝা গেল, বাংলাটা আরেকটু রপ্ত করতে পারলেই রেবিকা যে ভিনদেশি, এ কথা কাউকে বিশ্বাস করাতে আরও বেগ পেতে হবে। বাঙালি সংস্কৃতির সঙ্গে একপ্রকার মিশে গিয়েছেন তিনি।

ঢাকা মেডিকেল কলেজে ক্লাস শুরু করার পর বাংলা বুঝতে কষ্ট হতো। ক্লাসে অসহায় লাগত। কিন্তু বাংলা শিখতে তো হবে। হোস্টেলের বান্ধবীরাই প্রথমে সহায়তার হাত বাড়িয়ে দিলেন। তাঁদের কাছে কিছুটা শিখে, চর্চা করতে করতে তিনি রপ্ত করেন বাংলা ভাষা। এখন এমনই দক্ষ হয়ে উঠেছেন যে নিউমার্কেটে গিয়ে দিব্যি দরদাম করে কেনাকাটা করতে পারেন। হাসতে হাসতে রেবিকা বলছিলেন, ’আমি বলি, "কী মামা? বিদেশি পাইছেন নাকি? এত দাম বলেন কেন? এটার দাম তো মাত্র ৫০০ টাকা।" শুনে দোকানদারেরা অবাক হন!’

মেডিকেলের পড়ালেখার কঠিন বেড়াজালের ফাঁকে সময় পেলেই তিনি মিশে যেতে চেষ্টা করেন বাঙালি সংস্কৃতির সঙ্গে। পয়লা ফাল্গুনে বান্ধবীদের সঙ্গে বাহারি ফুলের খোঁপা বেঁধে ঘুরতে বের হন। সাকরাইনে চলে যান পুরান ঢাকায়। পুরান ঢাকার ঐতিহ্যবাহী খাবারের স্বাদ নিতে ভোলেন না। প্রায় প্রতিবছর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জগন্নাথ হলের সরস্বতীপূজায় তাঁর উপস্থিত থাকা চাই।

ফেব্রুয়ারি এলে তিনি অপেক্ষা করেন বইমেলার জন্য। দল বেঁধে ঘুরে এসেছেন নারায়ণগঞ্জের পানাম সিটি থেকে। চা–বাগান দেখতে ঘুরে এসেছেন সিলেট। সমুদ্রের ঢেউয়ের গর্জন শুনতে পাড়ি জমিয়েছেন কক্সবাজার। বাংলা গান শুনতে ভালোবাসেন। তবে বাংলা সাহিত্য এখনো পড়া হয়নি। বন্ধুদের কাছে হুমায়ূন আহমেদের গল্প শুনেছেন অনেক। এবার তাঁর বই পড়ার পরিকল্পনা। কলেজের অনুষ্ঠানে বাংলা গানের তালে নেচেছেনও এই নেপালি তরুণী। এককথায়, রেবিকা বাংলা ভাষা ও বাঙালিয়ানাকে উপভোগ করছেন একজন বাঙালির মতো করেই।

উল্লেখ্য, বিশ্বে অনেক দেশ রয়েছে। এই সকল দেশের ভাষার ক্ষেত্রে ও রয়েছে নানা ভিন্নতা। একেক দেশের ভাষা একেক রকম। বাংলাদেশের ভাষা বাংলা। যুদ্ধের বিনিময়ে বাঙালি জাতি এই ভাষা অর্জন করেছে। এবং এই ভাষা বাঙালিদের মাতৃভাষা হিসাবে বিশ্ব দরবারে সুপরিচিত। এবং বর্তমান সময়ে বাংলা ভাষার ব্যাপক জনপ্রিয়তা রয়েছে। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ছড়িয়ে পড়েছে এই বাংলা ভাষা। বাংলাদেশে জাতীয় ভাবে এবং শিক্ষা ব্যাবস্থার ক্ষেত্রে বাংলা ভাষার গুরুত্ব আপরিসীম।