বাংলাদেশের নির্বাচনের বিশেষ গুরুত্ব রয়েছে। জনগনের মুক্ত মতামতের প্রকাশ পায় নির্বাচনের মধ্যে দিয়ে। এবং সুষ্ঠ ও নিরপেক্ষ নির্বাচন দেশের গনতন্ত্র রক্ষার ক্ষেত্রে সহায়ক ভূমিকা পালন করে থাকে। বাংলাদেশের নির্বাচন কার্য পরিচালনা করে নির্বাচন কমিশন। জাতীয় ও সিটি এবং উপজেলা পর্যায়ের সকল নির্বাচন কার্য পরিচালনা করে থাকে এই নির্বাচন কমিশন। নির্বাচন কার্য সঠিক ভাবে পরিচালনার জন্য নির্বাচন কমিশনের সকল দায়িত্ব প্রাপ্ত ব্যাক্তিদের সততার সঙ্গে কাজ করার গুরুত্ব অপরিসীম।
চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনে দায়িত্বপ্রাপ্ত ম্যাজিস্ট্রেটদের শক্তির যথাযথ প্রয়োগ করতে বলেছেন নির্বাচন কমিশনার মো. রফিকুল ইসলাম। আর এ ক্ষেত্রে পুলিশকে সহায়তা করতে বলেন। তিনি ম্যাজিস্ট্রেটদের উদ্দেশ করে বলেন, ’কোনো কার্পণ্য করবেন না। ট্রান্সফারের ভয় পাবেন না। আমরা আছি।’নির্বাচন কমিশনার মো. রফিকুল ইসলাম বলেছেন, ’নির্বাচন নিয়ে অনেক কথা শুনতে হয়। সমালোচনা শুনতে হয়। তবে আমরা একটা গ্রহণযোগ্য আইনুনাগ নির্বাচন করতে চাই। এ জন্য আপানাদের সহযোগিতা দরকার।’

শনিবার রাতে সার্কিট হাউসের সম্মেলনকক্ষে সিটি করপোরেশন নির্বাচনকে সামনে রেখে অনুষ্ঠিত আইনশৃংখলাসংক্রান্ত সভায় রফিকুল ইসলাম এ নির্দেশ দেন। সভায় সভাপতিত্ব করেন বিভাগীয় কমিশনার এ বি এম আজাদ। স্বাগত বক্তব্য দেন সিটি নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা মুহাম্মদ হাসানুজ্জামান। সভায় জেলা প্রশাসক মো. ইলিয়াস হোসেন, অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার আমেনা বেগমসহ বিভিন্ন সংস্থার প্রতিনিধি, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এবং সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

সভার শুরুতে রফিকুল ইসলাম বলেন, ’আমরা কোনো রকম ব্যত্যয় দেখতে চাই না। আমরা ভোটারদের আশ্বস্ত করতে চাই, সুষ্ঠু নির্বাচনী পরিবেশ নিশ্চিত করে তাঁদের ভোটকেন্দ্রে আসার জন্য আহ্বান করছি। কোনো রকম বাধাবিঘ্ন হবে না। নিজের ভোট দিয়ে চলে যেতে পারবেন।’ সরাইপাড়ায় দুই ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্রার্থীর মধ্যেকার ঘটনার কথা উল্লেখ করে রফিকুল ইসলাম বলেন, ’এখনো প্রতীক বরাদ্দ হয়নি। অথচ দুজন কাউন্সিলর কাল শক্তি প্রদশর্ন করল। সত্যি আমি শঙ্কিত। প্রতীক বরাদ্দের পর যদি আরও অবস্থার অবনতি ঘটে, মানুষের যান মালের নিরাপত্তা বিঘ্নিত করলে কী ব্যবস্থা নিতে হবে, তাও আমাদের নির্ধারণ করতে হবে। কোনো অবস্থায় এই ধরনের পরিস্থিত ট্লারেট করব না।’

উল্লেখ্য, গত ১লা ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত হয়েছে ঢাকা সিটি নির্বাচন। এই নির্বাচনে সকল কেন্দ্রে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনের মধ্যে দিয়ে নির্বাচন কার্য পরিচালানা করেছে নির্বাচন কমিশন। ঢাকা দুই সিটির নির্বাচনে জয় লাভ করেছে আওয়ামীলীগের প্রার্থী। এবং সাম্প্রতিক সময়ে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচন। এই নির্বাচনকে কেন্দ্র করে নির্বাচন কমিশনের দায়িত্ব প্রাপ্ত ব্যাক্তিরাসহ পদ প্রার্থীরা ব্যস্ত সময় পার করছে।