করোনা ভাইরাস বর্তমান বিশ্বের নতুন এক আতঙ্কের নাম। বিশ্ব জুড়ে এই ভাইরাসকে ঘিরে আতঙ্কের মধ্যে রয়েছে। বর্তমান সময়ে বাংলাদেশ সহ বিশ্বের ১০৪টি দেশ এই ভাইরাসে আক্রান্ত। বিশ্বের অনেক মানুষ এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ইতিমধ্যে প্রান হারিয়েছেন। এবং আক্রান্তের সংখ্যা অনেক। নতুন করে এই ভাইরাসে আরো বেশ কয়েকটি দেশ আক্রান্তের তালিকায় রয়েছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এই ভাইরাস থকে সর্তক থাকার জন্য নানা ধরনের পরামর্শ প্রদান করছে।
করোনাভাইরাসে আক্রান্ত একজনের সংস্পর্শে আসায় ৪০ জনকে কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিব মো. আসাদুল ইসলাম। সোমবার সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সম্মেলন কক্ষে সচিব এ কথা জানান। বাংলাদেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত তিনজন রোগী শনাক্ত হয়েছে। আক্রান্তদের মধ্যে একজন নারী ও দুজন পুরুষ। এর মধ্যে দু’জন ইতালি ফেরত। আসাদুল ইসলাম, বাংলাদেশে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা আছে। এই আশঙ্কা রোধের জন্য আমরা ব্যবস্থাও করেছি। আমরা প্রথম জনের জন্য ৪০ জনকে ট্র্যাক করেছি। কোয়ারেন্টাইনের ব্যবস্থা করেছি। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে মন্ত্রিসভা বৈঠকের পর সচিবালয়ে সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম। এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিব।

আসাদুল ইসলাম বলেন, যেসব দেশে বেশি আক্রান্ত সেইসব দেশের অনঅ্যারাইভাল ভিসা স্থগিত করেছি। আমরা স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় থেকে পরামর্শ দিয়েছি- এগুলো করার দায়িত্ব পররাষ্ট্র ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের।
তিনি বলেন, ’বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার প্রটোকল অনুযায়ী, তাদের আমরা ফার্স্ট কন্ট্রাক্ট ধরব, এক্সটেন্ডেড কন্ট্রাক্ট ধরব, তাদের কীভাবে কোয়ারেন্টাইল করব- সবকিছু ফলো করেই আমরা ব্যবস্থা নিচ্ছি।’
একজনের জন্য ৪০ জনকে কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে, অন্য দুজনের জন্য কতজনকে কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে- এ বিষয়ে সচিব বলেন, ’এটার কোনো গড় অঙ্ক নেই। কার সঙ্গে মিশেছেন, কন্ট্রাক্ট হয়েছে, তাদের লোকাল লেভেলে কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। এটার সুনির্দিষ্ট সংখ্যা বলতে পারব না।’

আক্রান্ত দেশগুলো থেকে মানুষ আসার ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হবে কিনা- জানতে চাইলে তিনি বলেন, ’সেই সব বিষয়ে আমরা প্রথম থেকেই অ্যাডভাইস করছিলাম। যেখানে বেশি প্রাদুর্ভাব হয়েছে সেখান থেকে যেন কম লোক আসে। এমনকি আমাদের যারা ওসব দেশে আছে তারাও যাতে যাতায়াত রেস্ট্রিকটেড করে দেয়, সে বিষয়ে পরামর্শ দিচ্ছিলাম।’

উল্লেখ্য, গতকাল বাংলাদেশে তিন জনের শরীরে করোনাভাইরাস শনাক্তের সংবাদ প্রকাশ করেছে বাংলাদেশের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউট। করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ব্যক্তির সংস্পর্শে আসায় ৪০ জনকে কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। বাংলাদেশের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই করোনা ভাইরাস মোকাবিলার জন্য নানা পদক্সেপ গ্রহন করেছেন। এবং দেশবাসীকে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন থাকার জন্য বার্তা প্রদান করেছেন।