বাংলাদেশের বহুল আলোচিত ও জনপ্রিয় মুখ ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ। তিনি দীর্ঘ সময় ধরে রাজনীতির সঙ্গে সক্রীয় ছিলেন। এমনকি তিনি বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেছেন। তিনি দীর্ঘ সময় ধরে শারীরিক ভাবে অসুস্থ হয়ে সিঙ্গাপুরের মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। এবং ১৬ই মার্চ পাড়ি জমিয়েছেন না ফেরার দেশে। সম্প্রতি সময়ে ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদের প্রসঙ্গে বেশ কিছু কথা জানালেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ’ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ কখনোই ছাত্রলীগ করেননি, সব সময় সরকার ঘেষাই ছিলেন। তিনি ব্যারিস্টারি পাস করে ৬৯ সালে বাংলাদেশে আসেন। কবি জসিম উদ্দিনের জামাতা হিসেবে সবসময় তার প্রতি একটা সহানুভূতি ছিল। কিছু কিছু কাজ সবসময় তার ভিন্ন ধরনের ছিল। যার কারণে ৭৩ সালে তাকে একবার গ্রে/ফ/তা/রও করা হয়। কারণ (মওদুদ) বাংলাদেশের কিছু গো/প/ন তথ্য পা/চা/র করেছিলেন।’ ’এজন্য কবি জসিম উদ্দিন সাহেব এসেছিলেন আমাদের বাসায়। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর কাছে অনুরোধ করলেন যেন তাকে (মওদুদ) মুক্তি দেয়া হয়।’ করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মা/রা যাওয়া সিলেট-৩ আসনের সংসদ সদস্য মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরীর মৃ/ত্যু/তে বৃহস্পতিবার (১ এপ্রিল) জাতীয় সংসদে শোক প্রস্তাবের আলোচনায় অংশ নিয়ে এসব বলেন শেখ হাসিনা। কোনো এমপি মা/রা গেলে সংসদে শো/ক প্র/স্তা/ব আনার পর আলোচনার রেওয়াজ রয়েছে। গত অধিবেশন শেষ হওয়ার পর ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদসহ অনেকে মা/রা গেছেন। প্রসঙ্গক্রমে তাদের নিয়েও আলোচনা করেন প্রধানমন্ত্রী। এর আগে বেলা ১১টায় স্পিকার ড. শিরীন শারিমন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সংসদের অধিবেশন শুরু হয়।

মওদুদ প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ’জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে যখন আগরতলা ষ/ড়/য/ন্ত্র মামলায় গ্রে/ফ/তা/র করা হয় মওদুদ ইসলাম তখন নিয়োগভুক্ত আইনজীবী ছিলেন না।’ শেখ হাসিনা বলেন, ’আমার এখনো মনে আছে যখন আইয়ুব খান গোলটেবিল বৈঠক ডাকল, বঙ্গবন্ধুকে যখন প্যারোলে নিয়ে যাওয়ার প্রস্তাব হলো। তখন সে প্রস্তাব আমার মা প্র/ত্যা/হা/র করে বলেছেন-মা/ম/লা প্র/ত্যা/হা/র করে যেন মুক্ত মানুষ হিসেবেই তাকে (বঙ্গবন্ধু) জামিন দেয়া হয়।’ প্রধানমন্ত্রী বলেন, ’এই মেসেজটা আমি পৌঁছে দিয়েছিলাম আমাদের নেতাদের কাছে। তখন আমাদের বাসায় ব্যারিস্টার মওদুদ এবং আমিরুল ইসলাম আসেন। ব্যারিস্টার আমিরুল হোসেন বলেছিলেন, "তুমি কেমন মেয়ে পিতার মু্ক্তি চাও না?"। তার এ কথায় ব্যারিস্টার মওদুদ সায় দিয়েছিলেন। তখন আমি বলে দিয়েছিলাম বঙ্গবন্ধু মুক্ত হয়ে বেরিয়ে আসবেন। আপনারা বি/ভ্রা/ন্তি ছড়াবেন না।’ মওদুদ সম্পর্কে শেখ হাসিনা আরও বলেন, ’তিনি মুখে যাই বলুক তার লেখায় নিজের আপন মাধুরি মিশিয়ে কিছু লিখেছেন। তারপর আমি বলব- তিনি সবসময় দলবদল করতে পছন্দ করতেন। তিনি সা/জা/প্রা/প্ত একজন আসামি ছিলেন। এরশাদ রাষ্ট্রপতি হয়ে তাকে মন্ত্রিত্ব দিলেন। তার মধ্যে একটা ট্যালেন্ট ছিল। কিন্তু সেই ট্যালেন্ট যদি দেশপ্রেমের কাজে লাগাতেন তাহলে ভালো হতো।’

এর আগে সিলেট-৩ আসনের সংসদ সদস্য মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরীর মৃ/ত্যু/তে শো/ক প্রকাশ করে শেখ হাসিনা বলেন, ’শেখ রাসেলের জন্মদিন তিনি যথাযথভাবে পালন করেছেন প্রতিবছরই। আজ তিনি আর আমাদের মাঝে নেই। গত কয়েকদিন আগেও কথা বললাম। তিনি সবসময় রাজনীতিতে সক্রিয় ছিলেন। যখনই আমি শুনলাম তিনি অসুস্থ আমি চিকিৎসার ব্যবস্থা নিতে নিতেই তিনি চলে গেলেন। বিষয়টা খুবই দুঃখজনক। মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরী সম্পর্কে তিনি আরও বলেন, ’ছাত্রজীবন থেকে ছাত্রলীগ করেছেন, বিভিন্ন সংগঠন করেছেন, বিদেশে পড়াশোনা করেছে। প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী হয়েছিলেন। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সবগুলো সংগঠনের সঙ্গে সক্রিয়ভাবে জড়িত ছিলেন। তিনি রাজনৈতিক সচেতন একজন মানুষ।’ এইচটি ইমাম সম্পর্কে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ’দেশ স্বাধীন হওয়ার পর মন্ত্রিপরিষদ সচিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। তিনি আমলা হলেও রাজনৈতিকভাবে অত্যন্ত সচেতন ছিলেন। তিনি আন্দোলন-সংগ্রামে যথেষ্ট ভূমিকা রাখতেন।’

এই বছর বাংলাদেশের বেশ কয়েকজন রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব পাড়ি জমিয়েছেন না ফেরার দেশে। এই রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বদের মধ্যে সরকার দলীয় এবং বিরোধী দলীয় অনেক নেতাই রয়েছে। আাজ অনুষ্ঠিত জাতীয় সংসদের দ্বাদশ অধিবেশনে এই সকল নেতাদের উদ্দেশ্যে শোক প্রস্তাব উপস্থাপিত হয়েছে।

একটা সহানুভূতি ছিল, ৭৩ সালে তাকে একবার গ্রেফতারও করা হয়: শেখ হাসিনা
Logo
Print

Thursday, 01 April 2021 জাতীয়

 

বাংলাদেশের বহুল আলোচিত ও জনপ্রিয় মুখ ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ। তিনি দীর্ঘ সময় ধরে রাজনীতির সঙ্গে সক্রীয় ছিলেন। এমনকি তিনি বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেছেন। তিনি দীর্ঘ সময় ধরে শারীরিক ভাবে অসুস্থ হয়ে সিঙ্গাপুরের মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। এবং ১৬ই মার্চ পাড়ি জমিয়েছেন না ফেরার দেশে। সম্প্রতি সময়ে ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদের প্রসঙ্গে বেশ কিছু কথা জানালেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ’ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ কখনোই ছাত্রলীগ করেননি, সব সময় সরকার ঘেষাই ছিলেন। তিনি ব্যারিস্টারি পাস করে ৬৯ সালে বাংলাদেশে আসেন। কবি জসিম উদ্দিনের জামাতা হিসেবে সবসময় তার প্রতি একটা সহানুভূতি ছিল। কিছু কিছু কাজ সবসময় তার ভিন্ন ধরনের ছিল। যার কারণে ৭৩ সালে তাকে একবার গ্রে/ফ/তা/রও করা হয়। কারণ (মওদুদ) বাংলাদেশের কিছু গো/প/ন তথ্য পা/চা/র করেছিলেন।’ ’এজন্য কবি জসিম উদ্দিন সাহেব এসেছিলেন আমাদের বাসায়। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর কাছে অনুরোধ করলেন যেন তাকে (মওদুদ) মুক্তি দেয়া হয়।’ করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মা/রা যাওয়া সিলেট-৩ আসনের সংসদ সদস্য মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরীর মৃ/ত্যু/তে বৃহস্পতিবার (১ এপ্রিল) জাতীয় সংসদে শোক প্রস্তাবের আলোচনায় অংশ নিয়ে এসব বলেন শেখ হাসিনা। কোনো এমপি মা/রা গেলে সংসদে শো/ক প্র/স্তা/ব আনার পর আলোচনার রেওয়াজ রয়েছে। গত অধিবেশন শেষ হওয়ার পর ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদসহ অনেকে মা/রা গেছেন। প্রসঙ্গক্রমে তাদের নিয়েও আলোচনা করেন প্রধানমন্ত্রী। এর আগে বেলা ১১টায় স্পিকার ড. শিরীন শারিমন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সংসদের অধিবেশন শুরু হয়।

মওদুদ প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ’জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে যখন আগরতলা ষ/ড়/য/ন্ত্র মামলায় গ্রে/ফ/তা/র করা হয় মওদুদ ইসলাম তখন নিয়োগভুক্ত আইনজীবী ছিলেন না।’ শেখ হাসিনা বলেন, ’আমার এখনো মনে আছে যখন আইয়ুব খান গোলটেবিল বৈঠক ডাকল, বঙ্গবন্ধুকে যখন প্যারোলে নিয়ে যাওয়ার প্রস্তাব হলো। তখন সে প্রস্তাব আমার মা প্র/ত্যা/হা/র করে বলেছেন-মা/ম/লা প্র/ত্যা/হা/র করে যেন মুক্ত মানুষ হিসেবেই তাকে (বঙ্গবন্ধু) জামিন দেয়া হয়।’ প্রধানমন্ত্রী বলেন, ’এই মেসেজটা আমি পৌঁছে দিয়েছিলাম আমাদের নেতাদের কাছে। তখন আমাদের বাসায় ব্যারিস্টার মওদুদ এবং আমিরুল ইসলাম আসেন। ব্যারিস্টার আমিরুল হোসেন বলেছিলেন, "তুমি কেমন মেয়ে পিতার মু্ক্তি চাও না?"। তার এ কথায় ব্যারিস্টার মওদুদ সায় দিয়েছিলেন। তখন আমি বলে দিয়েছিলাম বঙ্গবন্ধু মুক্ত হয়ে বেরিয়ে আসবেন। আপনারা বি/ভ্রা/ন্তি ছড়াবেন না।’ মওদুদ সম্পর্কে শেখ হাসিনা আরও বলেন, ’তিনি মুখে যাই বলুক তার লেখায় নিজের আপন মাধুরি মিশিয়ে কিছু লিখেছেন। তারপর আমি বলব- তিনি সবসময় দলবদল করতে পছন্দ করতেন। তিনি সা/জা/প্রা/প্ত একজন আসামি ছিলেন। এরশাদ রাষ্ট্রপতি হয়ে তাকে মন্ত্রিত্ব দিলেন। তার মধ্যে একটা ট্যালেন্ট ছিল। কিন্তু সেই ট্যালেন্ট যদি দেশপ্রেমের কাজে লাগাতেন তাহলে ভালো হতো।’

এর আগে সিলেট-৩ আসনের সংসদ সদস্য মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরীর মৃ/ত্যু/তে শো/ক প্রকাশ করে শেখ হাসিনা বলেন, ’শেখ রাসেলের জন্মদিন তিনি যথাযথভাবে পালন করেছেন প্রতিবছরই। আজ তিনি আর আমাদের মাঝে নেই। গত কয়েকদিন আগেও কথা বললাম। তিনি সবসময় রাজনীতিতে সক্রিয় ছিলেন। যখনই আমি শুনলাম তিনি অসুস্থ আমি চিকিৎসার ব্যবস্থা নিতে নিতেই তিনি চলে গেলেন। বিষয়টা খুবই দুঃখজনক। মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরী সম্পর্কে তিনি আরও বলেন, ’ছাত্রজীবন থেকে ছাত্রলীগ করেছেন, বিভিন্ন সংগঠন করেছেন, বিদেশে পড়াশোনা করেছে। প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী হয়েছিলেন। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সবগুলো সংগঠনের সঙ্গে সক্রিয়ভাবে জড়িত ছিলেন। তিনি রাজনৈতিক সচেতন একজন মানুষ।’ এইচটি ইমাম সম্পর্কে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ’দেশ স্বাধীন হওয়ার পর মন্ত্রিপরিষদ সচিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। তিনি আমলা হলেও রাজনৈতিকভাবে অত্যন্ত সচেতন ছিলেন। তিনি আন্দোলন-সংগ্রামে যথেষ্ট ভূমিকা রাখতেন।’

এই বছর বাংলাদেশের বেশ কয়েকজন রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব পাড়ি জমিয়েছেন না ফেরার দেশে। এই রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বদের মধ্যে সরকার দলীয় এবং বিরোধী দলীয় অনেক নেতাই রয়েছে। আাজ অনুষ্ঠিত জাতীয় সংসদের দ্বাদশ অধিবেশনে এই সকল নেতাদের উদ্দেশ্যে শোক প্রস্তাব উপস্থাপিত হয়েছে।

Template Design © Joomla Templates | GavickPro. All rights reserved.